তাওহীদ বিশ্বাস করা প্রয়োজন কেন?

তাওহীদ বিশ্বাস করা প্রয়োজন কেন?

তাওহীদ হল আকাইদের সর্বপ্রথম ও সর্বপ্রধান বিষয় হল তাওহীদ। তাওহীদ শব্দের অর্থ হল “একত্ববাদ”। মহান আল্লাহ এক ও অদ্বিতীয় এবং তাঁর কোন শরিক নেই, মনে প্রাণে বিশ্বাসের নাম হল তাওহীদ ।  ইসলামের মূল ভিত্তিই হলো তাওহীদ। মানবজীবনে তাওহিদ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, যার উপর ইহকাল ও পরকালের কল্যাণ-অকল্যাণ, সফলতা-ব্যর্থতা নির্ভরশীল।  অর্থাৎ মুসলিম হওয়ার পূর্ব শর্ত হল আল্লাহর প্রতি ইমান আনা।

পবিত্র কুরআনে মহান আল্লহ বলেনঃ ‘‘আর ইবাদত কর আল্লাহর, শরিক করো না তাঁর সাথে অপর কাউকে’’। [সুরা নিসা : ৩৬]  সুতরাং তাওহীদে বিশ্বাস করা মানব জাতির জন্য অত্যান্ত প্রয়োজন। নিচে তাওহীদে বিশ্বাস স্থাপন করার গুরুত্ব আলোচনা করা হলোঃ 

১) আল্লাহ তাআলা নবি-রাসুলগণকে পাঠিয়েছেন তাঁর একত্ববাদের দিকে আহবান করার জন্য। কুরআনের অধিকাংশ সুরায় তাওহিদের প্রতি গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। 

২) আল্লাহর প্রতি ঈমান আনার নামই তাওহীদ। তাই তাওহীদে বিশ্বাসের গুরুত্ব অপরিসীম। নামাজ, রোজা, হজ্জ, যাকাত সব কিছুর মূল ভিত্তিই তাওহীদ।

৩) তাওহীদে বিশ্বাসী মানুষ সকল প্রকার অন্যায় ও পাপ কাজ থেকে নিজেকে বিরত রাখে এই ভেবে যে, পরকালে আল্লাহর নিকট সকল কাজের হিসাব দিতে হবে। তাই তাওহীদে বিশ্বাস গুরুত্ব অপরিসীম।

৪) ভ্রাতৃত্ববোধ বৃদ্ধিতে তাওহীদে গুরুত্ব অনেক। একত্ববাদে বিশ্বাস মানুষকে এক জাতিত্ব বোধ এনে দেয়। অপরদিকে শিরক মানুষে মানুষে বিভেদ সৃষ্টি করে। তাওহীদে বিশ্বাসী মানুষ বিপদ আপদে, হতাশ না হয়ে আল্লাহর উপর ভরসা রাখে। 

৫) আখেরাতে চিরস্থায়ী সুখ ও জান্নাত লাভ করতে তাওহিদের গুরুত্ব অপরিসীম। নবী করিম (সঃ) বলেনঃ ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে ‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ বলবে তার জন্য আল্লাহ জাহান্নাম হারাম করে দিবেন।’

সুতরাং, দুনিয়ার সুখ, শান্তি ও পরকালীন মুক্তির একমাত্র উপায় হলো আল্লাহ তাআলার উপর বিশুদ্ধ বিশ্বাস অর্থাৎ তাওহীদ। তাই দুনিয়ার সুখ, শান্তি ও পরকালীন মুক্তির জন্য আমাদের তাওহীদ মজবুদ করতে হবে।