পদ্মা নদীর মাঝি । মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় | University Admission Preparation

  1. উপন্যাস শব্দটির অর্থ কি? উত্তর: কল্পিত কাহিনী।
  2. উপন্যাসকে কয়টি ভাগে ভাগ করা যায়? উত্তর: ৯টি ভাগে।
  3. মানিক বন্দ্যোপাধায়ের জীবন কাল – উত্তর: জন্ম ১৯০৮- মৃত্যু ১৯৫৬ খ্রিস্টাব্দে।
  4. ‘পদ্মা নদীর মাঝি’ কি জাতীয় উপন্যাস? উত্তর: আঞ্চলিক উপন্যাস।
  5. ‘জন্মের অভ্যর্থনা এখানে গম্ভীর নিরুৎসব বিষন্ন’ – কোথায়? উত্তর: জেলে পাড়ার ।
  6. ‘শরীর থাক আর যাক- এ সময় একটা রাত্রিও ঘরে আসিয়া থাকিলে চলিবে না।’ উক্তিটি কার? উত্তর: কুবেরের।
  7. কুবের মাঝির বাড়ি কোথায় ছিল? উত্তর: কেতুপুর গ্রামে।
  8. ‘গরীবের মধ্যে সে গরীব, ছােট লােকের মধ্যে আরাে বেশি ছােটলােক’- উক্তিটি কোন রচনার অংশ? উত্তর: পদ্মা নদীর মাঝি।
  9. মিছা কওনের মানুষ তুমি না- উক্তিটি কার? উত্তর: কুবেরের।
  10. অবিশ্রান্ত খাটুনি এখানে, অসংখ্য অসুবিধা এখানে, জীবন এখানে নির্মম ও নীরব কোথায়? উত্তর: ময়নাদ্বীপে।
  11. কে ওয়াগানের আড়ালে দাঁড়িয়ে কুবেরকে ডাকছিল? উত্তর: শেতল বাবু।
  12. স্থানের অভাব এ জগতে নাই, তবু মাথা গুজিবার ঠাই এদের ওইটুকু – কাদের? উত্তর: জেলেদের।
  13. সে হাসতে জানে না, কে? উত্তর: মালা।
  14. সব গেছে মামা, আমার কেউ নাই’ – উক্তিটি কার? উত্তর: রাসুর।
  15. ক্ষুধা-তৃষ্ণার দেবতা, হাসি-কান্নার দেবতা অন্ধকার আত্মার দেবতা, ইহাদের পূজা কোনদিন সাঙ্গ হয় না- উক্তিটি কাদের জন্য? উত্তর: জেলেদের জন্য।
  16. কুবেরের সে অত্যন্ত অনুগত কে? উত্তর: গণেশ।
  17. ‘ভয় নাই, সব ঠিক হইয়া যাইব’ উক্তিটি কার? উত্তর: রাসুর।
  18. ‘হ গীত না তর মাথা’ – উক্তিটি কার? উত্তর: কুবেরের।
  19. আমি ময়নাদ্বীপে যামুনা কইয়া দিলাম- উক্তিটি কার? উত্তর: আমিনুদ্দিনের।
  20. কলসিটির বয়স কত বছর? উত্তর: দেড় বছর।
  21. ময়নাদ্বীপের মালিক কে? উত্তর: হােসেন মিয়া।
  22. কত সময় ধরে কুবের নদীতে মাছ ধরছিল? উত্তর: সারারাত।
  23. ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য কত টাকা সাহায্য উঠল? উত্তর: ২৫ টাকা।
  24. নদীর জোর বাতাসে সাদা কাপড় উড়িতেছে একাকিনী রমণীর, রমণী কে? উত্তর: কপিলা।
  25. কুবেরের শ্বশুর বাড়ি কোথায়? উত্তর: চরডাঙায়।