বিজয় দিবস – অনুচ্ছেদ

আমাদের জাতীয় জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন আমাদের স্বাধীনতা।  দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ শেষে ১৯৭১  সালের ১৬  ডিসেম্বর পাকিস্তানি স্বৈরশাসকের পরাজিত করে এই দিনটিতে আমরা বিজয় অর্জন করি।  আমাদের প্রিয় জন্মভূমি স্বৈরশাসক মুক্ত হয়।  আমরা পেয়ে যাই একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র।  একটি নিজস্ব মানচিত্র ও গর্বের পতাকা।  এর মাধ্যমে আমরা বিশ্বের দরবারে স্বাধীন জাতি হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াই।  প্রতিটি বাঙালির মনের অম্লান হয়ে থাকবে আজীবন।  কিন্তু এই বিজয় এমনি এমনি আসেনি। এর জন্য অনেক ত্যাগ তিতিক্ষা অতিক্রম করতে হয়েছে বাঙালি জাতিকে।  পাকিস্তানি বর্বর শাসকগোষ্ঠী বাংলা নিরীহ মানুষের উপর আক্রমণ করেছে একের পর এক।  হত্যা লুণ্ঠন অগ্নিসংযোগ করেছে বারবার।  বাঙালি বীরের জাতি।  তারা কখনোই অত্যাচার-নিপীড়ন মুখ বুঝে সহ্য করেনি।  বীর বাঙ্গালী  পাকিস্তান আক্রমণ রুখে দেয়।  দীর্ঘ নয় যুদ্ধ  শেষে ১৯৭১  সালের ১৬  ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে।  এর মাধ্যমে বাঙালি জাতির বিজয় ঘটে।  তাই এই দিনটিকে বিজয় দিবস বলা হয়।  অত্যন্ত জাঁকজমকপূর্ণ ও ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই দিনটি সারাদেশব্যাপী পালন করা হয়।  বিজয় দিবস আমাদের জাতীয় দিবস। বিজয় দিবসের চেতনায় উদ্দীপ্ত হয়ে প্রতিটি  বাঙালির একযোগে দেশের উন্নয়নে কাজ করে যেতে হবে। তবেই দেশের প্রকৃত বিজয় আসবে।