ব্যাকরন: ভাষা, সাধু ভাষা ও চলিত ভাষা

মনের ভাব প্রকাশ করার জন্য মানবজাতি অপরের বোধগম্য যে ধ্বনি বা ধ্বনি সমষ্টিকে থাকে তাকে ভাষা বলে। ভাষা বিজ্ঞানীদের মতে ভাষাকে নিম্নোক্তভাবে সংজ্ঞায়িত করা যায়।

ডঃ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর মতে, মনুষ্য জাতি যে ধ্বনি ধ্বনি সকল তারা মনের ভাব প্রকাশ করে তার নাম ভাষা। তার মতে ৯৫০ খ্রিস্টাব্দ বাংলা ভাষার উদ্ভব কাল।

ভাষা সম্পর্কে ডঃ সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায় বলেছেন, মনের ভাব প্রকাশের জন্য বাগযন্ত্রের সাহায্যে উচ্চারিত, ধ্বনির দ্বারা নিষ্পন্ন, কোন বিশেষ সমাজে ব্যবহৃত, স্বতন্ত্রভাবে অবস্থিত, বাক্যে প্রযুক্ত, শব্দ সমষ্টিকে ভাষা বলে।

ভাষার বৈশিষ্ট্য সমূহ

  • ভাষা কণ্ঠনিঃসৃত ধ্বনির সাহায্যে গঠিত।
  • ভাষার অর্থদ্যোতকতা গুন বিদ্যমান
  • ভাষার একটি বিশেষ সম্প্রদায়ের জন্য প্রচলিত ও ব্যবহৃত
  • ভাষা মানুষের স্বেচ্ছাকৃত আচরণ অভ্যাস এর সমষ্টি

ভাষার রূপ ও শ্রেণীবিভাগ

পৃথিবীর সব ভাষারই মূলত দুটি রূপ দেখা যায় একটি লেখ্য ভাষা অন্যটি কথ্য ভাষা।ভাষারীতির দিক থেকে বাংলা ভাষার দুটি রূপ বা রীতি লক্ষ করা যায়।

একটি সাধু ভাষা ও চলিত ভাষা। সাধু ভাষা বাংলা ভাষার একটি প্রাচীন লিখিত রূপ। ১৮০০ খ্রিস্টাব্দ কলকাতার ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের কেন্দ্র করে গদ্য চর্চা শুরু হয়। গদ্য রচনার জন্য উনিশ শতকে বাংলা লেখকগণ যে লিখিত রূপ গড়ে তোলে তার নাম দেওয়া হয় সাধু ভাষা। সাধু ভাষার সংজ্ঞা ডক্টর সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায় ও ডক্টর মুহাম্মদ এনামুল হক যথাক্রমে নিম্নরূপে দিয়েছেন।

  • সাধারণ সাধারন গদ্য সাহিত্যে ব্যবহৃত বাংলা ভাষাকে সাধু ভাষা বলে।
  • বাংলাবাংলা ভাষার সংস্কৃত শব্দ সম্পদ ক্রিয়া ও সর্বনাম পদ এর পূর্ণরূপ এবং ব্যাকরণ শিক্ষা উপাদান ব্যবহার করিয়া ইংরেজি গদ্যসাহিত্যের পদবিন্যাস অনুসারে পরিকল্পিত যে নতুন সার্বজনীন গদ্যরীতি বাংলা সাহিত্যের প্রবর্তিত হয় তাহাকে বাংলা সাধু ভাষা বলে।

সাধু ভাষার বৈশিষ্ট্য সমূহ

  • সাধু ভাষায় সর্বনাম পদ এর পূর্ণরূপ ব্যবহৃত হয়। যেমন তাহার, তাহারা, তাহাদের
  • সাধু ভাষায় ক্রিয়াপদ এর পূর্ণরূপ ব্যবহৃত হয়। যেমন করিয়াছি, গিয়াছি
  • সাধু ভাষায় অনুসর্গের পূর্ণরূপ ব্যবহৃত হয়। যেমন হইতে, দিয়া
  • সাধু ভাষায় তৎসম শব্দের প্রয়োগ বেশি।
  • সাধু ভাষার উচ্চারণ গুরুগম্ভীর
  • সাধু ভাষা সুনির্ধারিত ব্যাকরণ এর অনুসারী। এর কাঠামো সাধারণত অপরিবর্তনীয়।
  • সাধু ভাষা বক্তৃতা ও নাট্য সংলাপের অনুপোযোগী

দক্ষিণ পশ্চিমবঙ্গে ভাগীরথী নদীর তীরবর্তী স্থানে ভদ্র শিক্ষিত সমাজে ব্যবহৃত মৌখিক ভাষা সমগ্র বাংলাদেশের শিক্ষিত সমাজ কর্তৃক শ্রেষ্ঠ মৌখিক ভাষা বলে গৃহীত হয়েছে। এই মৌখিক ভাষা কে বিশেষভাবে চলিত ভাষা বলা হয়।

চলিত ভাষার বৈশিষ্ট্য সমূহ:

  • চলিত ভাষায় ক্রিয়াপদ এর সংক্ষিপ্ত রূপ ব্যবহৃত হয়।
  • চলিত ভাষায় সর্বনাম পদের সংক্ষিপ্ত রূপ ব্যবহৃত হয়।
  • চলিত ভাষায় অনুসর্গের সংক্ষিপ্ত রূপ ব্যবহৃত হয
  • চলিত ভাষায় তদ্ভব ও অর্ধতৎসম দেশী ও বিদেশী শব্দের ব্যবহার বেশি।
  • চলিত ভাষার উচ্চারণ হালকা ও গতিশীল।
  • চলিত ভাষা পরিবর্তনশীল।
  • চলিত ভাষা চটুল জীবন্ত ও লোকায়ত।

ভাষা সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ নৈবত্তিক সমূহ:

  1. ম্যান্ডারিন কোন দেশের অধিকাংশ মানুষের ভাষা? চীন
  2. গারো জনগোষ্ঠীর ভাষার নাম কি? উত্তর: আচিক
  3. ভারতীয় আর্য ভাষার প্রথম স্তর কোনটি? উত্তর: বৈদিক ভাষা
  4. পৃথিবীতে কত ভাষা প্রচলিত আছে? উত্তর: সাড়ে তিন হাজারের কাছাকাছি।
  5. কোন ভাষা বাংলার জননী? উত্তর: প্রাকৃত ভাষা
  6. বাংলা বাংলা সাথে খুব ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক আছে কোন ভাষার? উত্তর আসামিও উড়িয়া।
  7. সমাজের সমাজের উঁচু শ্রেণীর মানুষের লেখা ভাষা ছিল কোনটি? উত্তর: সংস্কৃত
  8. স্থান-কাল স্থান কাল ও সমাজ ভেদে কোনটির গ্রুপে দেখা যায়? উত্তর: ভাষার
  9. প্রাকৃত প্রাকৃত ভাষাগুলোর বিকৃত রূপ কি? উত্তর: বাংলা
  10. পূর্ব মাগদের অপভ্রংশ থেকে উদ্ভূত ভাষা কোনটি? উত্তর: বাংলা
  11. ভাষার ভাষার প্রাণ হলো অর্থপূর্ণ— উত্তর: অর্থপূর্ণ ধ্বনি
  12. কোনটি কোনটি আধুনিক ভারতীয় আর্য ভাষা? হিন্দি
  13. গারো গারো জনগোষ্ঠীর ভাষা কোনটি? অচিক
  14. বাংলা পৃথিবীর কততম মাতৃভাষা? উত্তর: চতুর্থ
  15. প্রাকৃত ভাষা হচ্ছে—- উত্তর: কথ্য ভাষা
  16. প্রাকৃত ভাষাগুলোর শেষ স্তরের নাম কি? উত্তর: অপভ্রংশ
  17. ধ্বনির অর্থপূর্ণ মিলনে কি গঠিত হয়? উত্তর: শব্দ
  18. কিসের সাহায্যে ধ্বনির সৃষ্টি হয়? উত্তর: বাগযন্ত্রের সাহায্যে
  19. ভাষাকে কিসের বাহন বলা হয়? উত্তর: ভাবের
  20. ভাষাকে রূপদান করতে কিসের সাহায্য নিতে হয়? উত্তর: বাগযন্ত্রের সাহায্য
  21. চীনের অধিকাংশ মানুষের ভাষা কি? উত্তর: ম্যান্ডারিন
  22. পৃথিবীতে প্রচলিত ভাষার সংখ্যা কত? উত্তর প্রায় সাড়ে তিন হাজার
  23. কারা আর্থিক ভাষায় কথা বলেন? উত্তর গারো সম্প্রদায়
  24. বাংলাদেশ ছাড়া ভারতের কোন অঞ্চলের মানুষের মুখের ভাষা বাংলা? উত্তর বিহার, পশ্চিমবঙ্গ
  25. বাংলাদেশের বাইরে আর কোথায় বাংলা ভাষা প্রচলিত আছে? উত্তর: ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, বিহার, ত্রিপুরা।
  26. ভাষা বলতে বোঝায়—-উত্তর: অর্থবোধক ধ্বনি
  27. অর্থের সাথে কিসের সংশ্লিষ্টতা থাকে না? উত্তর: ভাষার
  28. শব্দ কি? উত্তর: অর্থপূর্ণ ধ্বনির সমষ্টি
  29. অর্থবোধক অর্থবোধক ধ্বনি সমষ্টিকে কি বলে? উত্তর: শব্দ
  30. মানুষের মানুষের কন্ঠনিঃসৃত বাক সংকেতের সংগঠনকে কি বলে? উত্তর: ভাষা