৬ষ্ঠ শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২১ । সকল সপ্তাহ

এক নজরে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়সমুহঃ

করোনা অতিমারীর কারণে গত ১৭ মার্চ ২০২০ তারিখ থেকে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয় এবং তা খোলার উপযুক্ত পরিবেশ তৈরী না হওয়ার কারণে ২০২১ শিক্ষাবর্ষেও শিক্ষার্থীদের শিখন প্রক্রিয়া যেন ব্যহত না হয় তার জন্য গত বছর অর্থাৎ ২০২০ সালের ন্যায় এ বছরও ৬ষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ধারাবাহিকভাবে এ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজের মাধ্যমে মূল্যায়ন করা হবে।

এসাইনমেন্ট প্রকাশঃ ২০/০৩/২০২১
মোট বিষয়ঃ ২ টি। (বাংলা ও ধর্ম শিক্ষা)

৬ষ্ঠ শ্রেণীর ইংরেজি এ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২১

Think of your first day at school. What experience did you have then? How did you feel- happy, frightened, thrilled or shy? Why did you feel so? In your writing use the following cues:
a. When did you go there?
b. Who did you go with?
c. How did you go there?
d. Who did you meet there?
e. What did you see there?
f. What was interesting/boring to you? Why?
g. How did you feel after returning home?

My First Day at School

My first day at the new school was interesting. I was going to school with my father in a rickshaw. We reached school after fifteen minutes. My father said goodbye and left me at the school gate. I went in and found that everyone had gone to class. I walked into my classroom and found a seat. After some time a teacher came and warmly greeted us. I found the students very friendly in my new class. After returning from school, I missed my class very much. I started waiting for the next class.

[button link=”https://bd24onlineschool.com/english-assignment-class-6-first-day-at-school/” color=”green”] Read More[/button]

৬ষ্ঠ শ্রেণীর বাংলা এ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২১

সাধু রুপঃ তারপর স্বর্গীয় দূত পূর্বে যে টাকওয়ালা ছিল, তাহার কাছে গেলেন। সেখানে গিয়া আগের মতাে একটি গাভি চাহিলেন। সেও ধবল রােগীর মতাে তাহাকে কিছুই দিলনা। তখন স্বর্গীয়দূত বলিলেন, আচ্ছা, যদি তুমি মিথ্যা বলিয়া থাক, তবে যেমন ছিলে আল্লাহ তােমাকে আবার তেমনি করিবেন।

তারপর স্বর্গীয়দূত পূর্বে যে অন্ধছিল, তাহার কাছে গিয়া বলিলেন, আমি এক বিদেশি। বিদেশে আমার সম্বল ফুরাইয়া গিয়াছে। এখন আল্লাহর দয়া ছাড়া আমার দেশে পৌঁছিবার আর কোনাে উপায় নাই। যিনি তােমার চক্ষু ভালাে করিয়া দিয়াছেন, আমি তােমাকে সেই আল্লাহর দোহাই দিয়া একটি ছাগল চাহিতেছি; যেন আমি সেই ছাগল-বেচা টাকা দিয়া দেশে ফিরিয়া যাইতে পারি।

চলিত রুপঃ তারপর স্বর্গীয় দূত পূর্বে যে টাকওয়ালা ছিল, তার কাছে গেলেন। সেখানে গিয়ে আগের মত একটি গাভী চাইলেন। সেও ধবল রোগীর মতো তাকে কিছু দিল না। তখন স্বর্গীয় দূত বললেন, আচ্ছা যদি তুমি মিথ্যা বলে থাকো, তবে যেমন ছিলে আল্লাহ তোমাকে আবার এমন করবেন। তারপর স্বর্গীয় দূত আগে যে অন্ধ ছিল, তার কাছে গিয়ে বললেন আমি এক বিদেশি। বিদেশে আমার সম্বল ফুরিয়ে গিয়েছে। এখন আল্লাহর দয়া ছাড়া আমার সারা দেশে পৌঁছানোর আর কোন উপায় নেই। যিনি তোমার চোখ ভাল করে দিয়েছেন, আমি তোমাকে সেই আল্লাহর দোহাই দিয়ে একটি ছাগল চাচ্ছি; যেন আমি সেই ছাগল বিক্রি টাকা দিয়ে দেশে ফিরে যেতে পারি।

৬ষ্ঠ শ্রেণীর ধর্ম শিক্ষা এ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২১

আল্লাহ তায়ালার একত্ববাদের উপর প্রতিবেদন

তাওহীদ হল আকাইদের সর্বপ্রথম ও সর্বপ্রধান বিষয় হল তাওহীদ। তাওহীদ শব্দের অর্থ হল “একত্ববাদ”। মহান আল্লাহ এক ও অদ্বিতীয় এবং তাঁর কোন শরিক নেই, মনে প্রাণে বিশ্বাসের নাম হল তাওহীদ ।  ইসলামের মূল ভিত্তিই হলো তাওহীদ। মানবজীবনে তাওহিদ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, যার উপর ইহকাল ও পরকালের কল্যাণ-অকল্যাণ, সফলতা-ব্যর্থতা নির্ভরশীল।  অর্থাৎ মুসলিম হওয়ার পূর্ব শর্ত হল আল্লাহর প্রতি ইমান আনা।

আমরা আমাদের চারপাশে নানারকম জিনিস দেখতে পাই । সুন্দর সুন্দর ফুল, ফল, গাছপালা, তরুলতা, পশুপাখি ইত্যাদি। এছাড়া রয়েছে নদীনালা, পাহাড়, পর্বত, বন, জঙ্গল, সাগর, মহাসাগর । আরও আছে | বিশাল আকাশ, চন্দ্র, সূর্য, গ্রহ নক্ষত্র ইত্যাদি। আমরা খালি চোখে দেখতে পাই না এমন অনেক বস্তু এবং  প্রাণীও রয়েছে। এসব কিছুই সৃষ্টিজগতের অন্তর্গত। এগুলাে সৃষ্টিকর্তা ছাড়া নিজ থেকে সৃষ্ট হয়নি। নিশ্চয়ই একজন স্রষ্টা এগুলাে সৃষ্টি করেছেন। তিনি হলেন মহান আল্লাহ। তিনিই সবকিছু সৃষ্টি করেছেন। তাঁর কোনাে সাহায্যকারীর প্রয়ােজন হয়নি। তিনি হও’ (কুন) বলার সাথে সাথেই সবকিছু সৃষ্টি হয়ে যায়। বিশ্বজগতের সবকিছুই তিনি মানুষের কল্যাণের জন্য সৃষ্টি করেছেন। মানুষ জ্ঞান-বুদ্ধি প্রয়ােগ করে | এগুলাে থেকে উপকার লাভ করে। সুতরাং মানুষের উচিত তার স্রষ্টার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা। এক আল্লাহ তায়ালার আনুগত্য ও ইবাদত করা। তাঁর ইবাদতে অন্য কাউকে শরিক করা যাবে না। এভাবে মহান আল্লাহর তাওহিদ বা একত্ববাদের প্রতি অনুগত হলে মানুষ দুনিয়া ও আখিরাতের জীবনে কল্যাণ ও সফলতা লাভ করতে পারে।

কালিমা তাইয়্যিবা

উচ্চারণ : লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ
অর্থ : আল্লাহ ছাড়া কোন ইলাহ বা মাবুদ নেই, মুহাম্মদ (স) আল্লাহর রাসুল।

কালিমা তায়্যিবা অর্থ হলাে পবিত্র বাক্য। এটি তাওহিদ, ইমান ও ইসলামের মূলভিত্তি । এ কালিমা স্বীকার করলে কেউ ইসলামে প্রবেশ করতে পারে না। এ কালিমার দুটি অংশ। প্রথম অংশ : (লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ) অর্থ : আল্লাহ ছাড়া কোনাে ইলাহ বা মাবুদ নেই। অর্থাৎ পৃথিবীতে ইলাহ বা ইবাদতের যােগ্য একমাত্র আল্লাহ তায়ালা । তিনি ব্যতীত আর কেউ উপাস্য হতে পারে না। চন্দ্র, সূর্য, তারকারাজি, পাহাড়, পর্বত, বাঘ-সিংহ, রাজা-বাদশাহ কেউই ইবাদতের যােগ্য নয়। বরং এসবের সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ তায়ালাই হলেন একমাত্র মাবুদ। তাকে ছাড়া আর কারাে ইবাদত বা উপাসনা করা যাবে না। এমনকি তাঁর ইবাদতে অন্য কাউকে শরিক করাও যাবে না । আরবি ‘লা-ইলাহা’ শব্দের অর্থ কোনাে ইলাহ নেই; আর ইল্লাল্লাহ’ অর্থ। আল্লাহ ছাড়া। কালিমার এ অংশটি না-বােধক শব্দ দ্বারা শুরু করা হয়েছে। এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ । আমরা কোনাে পাত্রে ভালাে কিছু নেওয়ার আগে প্রথমে ঐ পাত্রটি খালি করে ফেলি। যেন ঐ জিনিসটি অন্য কিছুর সাথে মিশ্রিত না হয়। অতঃপর ‘ইল্লাল্লাহু’ দ্বারা আল্লাহ তায়ালার প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করা হবে।

আরও দেখঃ ষষ্ঠ শ্রেণি বাংলা অ্যাসাইনমেন্ট

কালিমা শাহাদাত

উচ্চারণ : আশহাদু আল্ লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা-শারিকালাহু ওয়া আশহাদু আন্না মুহাম্মাদান আবদুহু ওয়া রাসুলুহু।
অর্থ : আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, আল্লাহ ছাড়া আর কোনাে ইলাহ নেই। তিনি একক, তার কোনাে শরিক নেই। আমি আরও সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, নিশ্চয়ই মুহাম্মদ (স) তাঁর (আল্লাহর) বান্দা ও রাসুল।

আল্লাহ তায়ালা আমাদের সৃষ্টি করেছেন। তিনি আমাদের রব। তিনি আমাদের রিজিক দেন, প্রতিপালন করেন, সুস্থতা দান করেন । তিনি আমাদের নানারূপ নিয়ামত দান করেন । আলাে, বাতাস, পানি, খাদ্য, সবকিছুই তাঁর দান। সুতরাং আমাদের উচিত তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা। অপরদিকে হযরত মুহাম্মদ (স) আল্লাহ তায়ালার প্রেরিত নবি ও রাসুল। তিনিই আমাদের নিকট আল্লাহ পাকের পরিচয় তুলে ধরেছেন। সত্য, মিথ্যার পার্থক্য শিখিয়েছেন। জান্নাতে যাওয়ার দিকনির্দেশনা প্রদান করেছেন। সুতরাং সকল কাজে তার আনুগত্য করা এবং তার প্রতি ভালােবাসা প্রকাশ করাও অত্যাবশ্যক। তাই আমাদের উচিত তার একত্ববাদের উপর বিশ্বাস করা এবং তার প্রতি  কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা। আল্লাহ তাআলার  আনুগত্য ও ইবাদত করা।

Assignment class vi – English Version:

Report on the Oneness of Allah Ta’ala: Tawheed is the first and foremost thing of the Aqeedah. The word Tauhid means “monotheism”. The great Allah is one and unique and He has no partner. The name of faith in the mind is Tawheed. The main foundation of Islam is Tawheed. Tawheed is an important issue in human life, on which the good and bad, success and failure of this world and the hereafter depend. That is, the precondition for becoming a Muslim is to believe in Allah.

We see all sorts of things around us. Beautiful flowers, fruits, plants, tenderness, animals etc. There are also rivers, hills, mountains, forests, jungles, seas, oceans. There are more huge sky, moon, sun, planets, stars, etc. There are also many objects and animals that we cannot see with the naked eye. None of this belongs to the universe. These were not created by themselves without a Creator. Surely a Creator has created them. He is the great God. He created everything. He did not need a helper. Everything is created as soon as he says ‘hou’ (kun). He created everything in the universe for the benefit of mankind. People use knowledge and intellectual benefit from these. So man should be grateful to his Creator. One is to obey and worship Allah Ta’ala. No one else can be associated with his worship. In this way, if one adheres to the Oneness of Allah, one can attain goodness and success in this world and in the Hereafter.

Kalima Tayyiba

Pronunciation: La-Ilaha Illallahu Muhammadur Rasulullah.

Meaning: There is none to be worshipped but Allha and Muhammad (Sm.) is the messenger of Allah.

Kalima Tayyiba means holy word. This is the foundation of Tawheed, Iman and Islam. No one can enter Islam if he accepts this Kalima. There are two parts to this ink. The first part: (La-ilaha illallah) Meaning: There is no god but Allah. That is, only Allah Ta’ala is worthy of worship in the world. No one can be a god except Him. The moon, the sun, the stars, the mountains, the mountains, the tigers, the lions, the kings are not worthy of worship. Rather, Allah Ta’ala is the only God who created them. Worship cannot be done without him. Even his worship cannot be shared with anyone else. The Arabic word ‘la-ilaha’ means there is no ilaah anywhere; And Illallah ‘means. Except God. This part of Kalima is started with a non-binding word. This is very important. We empty the container first before taking anything good in the corner. As if that thing is not mixed with anything else. Then one will believe in Allah Ta’ala by ‘Illallahu’.

Kalima Shahadat

Pronunciation: Asshadu Al La-Ilaha Illallahu Wahdahu La-Sharika Lahu, Wa Ashhadu Anna Muhammadan Abduhu Wa Rasuluhu. 

  • Allah Ta’ala has created us. He is our Lord. He provides for us, nourishes us, and heals us. He bestows on us various blessings. Alae, air, water, food, everything is His gift. So we should be grateful to him. On the other hand, Hazrat Muhammad (SAW) is the Prophet and Messenger of Allah Ta’ala. He is the one who has revealed the identity of God to us. Taught the difference between truth and falsehood. Provided directions to Paradise. So it is vital to obey him and to love him in all things. So we should believe in his monotheism and be grateful to him.

অ্যাসাইনমেন্ট প্রস্তুতির জন্য শিক্ষার্থীদের জন্য নির্দেশিকা ২০২১

  • অ্যাসাইনমেন্টের মূল উদ্দেশ্যটি হল শিক্ষার্থীদের শেখার ফলাফল অর্জন করা। এটি তোমাদের পরবর্তী ক্লাসে পাঠ নিতে সহায়তা করবে। সুতরাং, এটি অনুসরণ করা গুরুত্বপূর্ণ।
  • অ্যাসাইনমেন্ট প্রস্তুত করতে ২০২১ শিক্ষাবর্ষের জন্য এনসিটিবি দ্বারা প্রস্তুত পাঠ্যপুস্তকগুলি ব্যবহার করুন। বাজার থেকে কেনা গাইড বই বা নোটের দরকার নেই।
  • শিক্ষার্থীর ব্যক্তিত্ব এবং সৃজনশীলতা মূল্যায়নে যাচাই করা হবে। সুতরাং আপনি যদি অন্য কারও লেখার অনুলিপি করে কোনও
  • অ্যাসাইনমেন্ট জমা দেন তবে তা বাতিল হয়ে যাবে এবং আপনাকে আবার সেই নিয়োগ জমা দিতে হবে।
  • অ্যাসাইনমেন্টগুলি সরাসরি আপনার নিজের হাতে লেখা উচিত। হাতের লেখা ভাল করার জন্য এটি দরকারী হবে।
  • কোনও অ্যাসাইনমেন্ট লেখার সময় আপনি যে কোনও ধরণের সাদা কাগজ ব্যবহার করতে পারেন (সাধারণত এ 4 আকার)। তবে নি নাম, শ্রেণি, রোল, বিষয়, এবং শিরোনাম অবশ্যই প্রচ্ছদ পৃষ্ঠায় স্পষ্টভাবে লেখা উচিত।